ভূঞাপুরে স্কুলের মাঠ দখল করে দোকান নির্মাণ!

অভিজিৎ ঘোষ : টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে দোকান নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় স্কুলের জমিতে ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ বার বার দখলকৃত জায়গা ছেড়ে দিতে ও দোকান উচ্ছেদের কথা বলায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে দখলকারী। এঘটনায় এলাকাবাসী ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছেন।

জানা যায়, উপজেলার কাগমারীপাড়ার একই পরিবারের আনছার আলী ভূইয়া, আব্দুল কাদের ভূইয়া শফিকুল ইসলাম ভূইয়া ও আব্দুল মজিদ ভূইয়া ও ফেমেলি বেগম দীর্ঘদিন যাবৎ জোরপূর্বক কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা দখল করে প্রথমে বাড়ি নির্মাণ করেন। পরে স্কুলের মাঠ দখল করে দোকান-পাট নির্মাণ করে ভাড়া দিয়েছে। বিদ্যালয়ের মাঠের বাউন্ডারী ও গেট নির্মাণ করার আগে দখলকারীদের দোকান উচ্ছেদ ও জায়গা ছেড়ে দিতে বলে স্কুল কৃর্তপক্ষ। এতে দখলকারীরা বিদ্যালয় মাঠে নির্মাণকৃত দোকানপাট ও জায়গা ছেড়ে না দিয়ে উল্টো বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও উপজেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। যদিও যে দাগের বিরুদ্ধে দখলকারীরা মামলা দায়ের করেছে সেটি স্কুলের জমির দাগ না। স্কুলের ৪৮১/৮১ দাগের এক একর ২৬ শতাংশ জমি হলেও মামলা হয়েছে ৪৯০ দাগের ১৭ শতাংশ জমির দাগের বিরুদ্ধে। শুধু মামলা নয় স্কুলের জমি উদ্ধারে গেলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষসহ স্থানীয়দের নানাভাবে হত্যার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে দখলকারীরা।

কাগমারীপাড়া ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগ সভাপতি আকরাম হোসেন খান মজলুমের কণ্ঠকে জানান, স্কুলের জায়গা পরিমাপ করতে গেলেই দখলকারীরা মারতে আসে। এছাড়া আনছার ভূইয়ার মেয়ে লিপি ভূইয়া হত্যার হুমকি দিচ্ছে। তারা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে পারছে না।

কাগমারীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা দিল আরা আফরুজ মজলুমের কণ্ঠকে জানান, স্কুল মাঠের জায়গা ছেড়ে না দিয়ে উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন সময় গালিগালাজ করছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ মজলুমের কণ্ঠকে জানান, জুন মাসে মধ্যে স্কুলের বাউন্ডারী ওয়াল নির্মাণ কাজ শেষ করা হবে। দখলকারীদের তাদের কাগজপত্র দেখাতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তারা কোন জমির বৈধ কাগজপত্র দেখা পারেনি।

Related Articles