দেলদুয়ারে ভাতার কার্ড বিতরণে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

দেলদুয়ার প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড বিতরণে অর্থ আদায়ের অভিযোগ ওঠেছে সমাজসেবা অফিসের ইউনিয়ন সমাজ কর্মী রাজিয়া বেগমের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, এ বছর উপজেলার ফাজিলহাটি ইউনিয়নে ৮১ টি ভাতার কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী কার্ডগুলো সমাজসেবা অফিসের মাধ্যমে অফিস থেকে বিতরণ করার কথা। কিন্তু দায়িত্বপ্রাপ্ত ইউনিয়ন সমাজকর্মী রাজিয়া বেগম তার নিজ বাড়ি থেকে এক হাজার টাকার বিনিময়ে বিতরণ করছেন এমন অভিযোগ ভাতাভোগীদের। মঙ্গলবার সরেজমিন কৃষি ব্যাংক চরপাড়া বাজার শাখায় ভাতা উত্তোলন করতে আসা ভাতাভোগীদের সঙ্গে কথা বললে তারা ওই সমাজকর্মীর নানা অনিয়মের কথা তুলে ধরেন। এলাচিপুর গ্রামের মুজিবুর রহমান (৭০) জানান, বয়স্ক ভাতার কার্ড নিতে সমাজকর্মী রাজিয়া বেগমকে এক হাজার টাকা দিতে হয়েছে। অপর ভাতাভোগী মেরুয়াঘোনা গ্রামের অমর মন্ডল (৭৫) বলেন, কার্ড নিতে রাজিয়া বেগমের নিকট একাধিকবার গিয়েছেন। কিন্তু তিনি টাকা ছাড়া কার্ড দেননি। পরে তিনি বহু কষ্টে এক হাজার টাকা যোগাড় করে তা ওই কর্মীকে দিয়ে কার্ড নিয়েছেন। কামারনওগাঁ সিকদারপাড়ার শিরিন সুলতানা জানান, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বিনা খরচে বিধবা ভাতার ব্যবস্থা করলেও সমাজকর্মী রাজিয়া বেগম টাকা না দিলে কার্ড দিচ্ছে না। এলাচিপুর গ্রামের বাক-প্রতিবন্ধী আশিক (১৬)। তার পিতা আসলাম মিয়া অভিযোগ করে বলেন, তার ছেলের জন্য বিনা খরচে ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। সমাজসেবা থেকে কার্ড ইস্যু হলেও তা হাতে পেতে সমাজকর্মী রাজিয়া বেগমকে ৫শ’ টাকা দিতে হয়েছে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সমাজকর্মী রাজিয়া বেগম প্রথমে তিনি টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন। পরে ইতস্তত কণ্ঠে বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের কার্ড প্রতি ৫শ’ টাকা করে দিতে হয়। তাছাড়া আরো আনুসঙ্গিক খরচপত্র রয়েছে।

সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. আব্দুল মোতালেব হোসেন বলেন, কার্ড বিতরণে টাকা নেয়ার কোনো নিয়ম নাই। যদি কেউ নিয়ে থাকে তা সম্পূর্ণ তার নিজস্ব ব্যপার। কোনো কর্মীর বিরুদ্ধে কার্ড বিতরণে টাকা নেয়ার অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Related Articles