ধনবাড়ীতে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা, থানায় অভিযোগ

মধুপুর প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ঘরে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে দুই সন্তানের জনক মোঃ ফারুক মিয়া নামে এক লম্পট।

এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ওই ছাত্রীর বাবা মোঃ জুলহাস উদ্দিন। লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজ সোমবার ধনবাড়ী থানার ওসিকে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় ধনবাড়ী উপজেলার যদুনাথপুর ইউনিয়নের পাথালিয়া গ্রামের মৃত মহর আলীর ছেলে দুই সন্তানের জনক মোঃ ফারুক মিয়া (৩২) গত ১৪ জুলাই শনিবার রাতে পাশের বাড়ীর ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ুয়া জনৈক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ঘরে একা পেয়ে ঝাপটে ধরে স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিয়ে নির্যাতন করে এবং জোরপূর্বক পরনের কাপড় খুলে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এসময় মেয়েটির চিৎকার দিলে মেয়ের দাদী ও আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে ধর্ষণচেষ্টাকারী লম্পট ফারুক মিয়া দৌড়ে পালিয়ে যায়।

মেয়ের বাবা মোঃ জুলহাস উদ্দিন জানান তিনি এবং তার স্ত্রী মেয়ের পড়ালেখা ও সংসারের খরচ যোগাতে ঢাকায় এক গার্মেন্টেসে চাকুরী করেন বিধায় বাড়ীতে বৃদ্ধা মা অর্থাৎ মেয়ের দাদী ছাড়া আর কেউ থাকে না।

আর এ সুযোগে ওই লম্পট আমার ঘরে ঢুকে ১১ বছরের মেয়ের উপর পশুসুলভ আচরণ করেছে। আমি এর কঠোর বিচার চাই।

স্থানীয় ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন মেয়ের বাবা আমাদের কাছে জানালে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

যদুনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান মীর ফিরোজ আহমেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন এবং আইনের আওতায় বিচারের দাবী জানান।

ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফা সিদ্দিকা জানান এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য ধনবাড়ী থানার ওসিকে লিখিত ভাবে জানিয়েছি।

ধনবাড়ী থানার ওসি মজিবর রহমান জানান ইউএওর মাধ্যমে এব্যাপারে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আসামী গ্রেফতারের জোর তৎপরতা চলছে। অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Related Articles