ঈদকে সামনে রেখে তোরাপগঞ্জ ইসলামী ব্যাংক’র এজেন্ট শাখায় লেনদেন বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদের আর মাত্র ৮দিন বাকি থাকায় সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকগুলোতে বেড়ে গেছে লেনদেন। সকাল থেকে ব্যাংকগুলোতে তৈরি হচ্ছে গ্রাহকদের দীর্ঘ লাইন। তবে শহরের বিভিন্ন ব্যাংকে গ্রাহকদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেলেও গ্রামাঞ্চলের তোরাপগঞ্জ ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের এজেন্ট আউটলেট শাখায়ও একই অবস্থা।

আজ মঙ্গলবার টাঙ্গাইল সদর উপজেলার তোরাপগঞ্জ বাজারে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের এজেন্ট আউটলেট শাখায় গ্রাহকদের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। ব্যাংকে আসা গ্রাহক মর্জিনা জানান, আমার ছেলে বিদেশে আছে। সে আগে টাঙ্গাইল শহরে ইসলামী ব্যাংকে টাকা পাঠাতো। এখন তোরাপগঞ্জ শাখায় টাকা পাঠায়। আমি প্রতি মাসে এখান থেকে টাকা নেই। ঈদের খরচের জন্য টাকা পাঠিয়েছে। তাই নিতে এসেছি। আর বাড়তি গাড়ি ভাড়া দিয়ে শহরে যেতে হয় না।

অপর এক গ্রাহক আঃ খালেক বলেন, আমার ছেলে সৌদি থেকে টাকা পাঠায়। তাই আমি এ শাখায় টাকা নিতে এসেছি। আর আমাদের শহরমুখী হতে হয় না।

কড়া নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে গ্রাহকদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তোরাপগঞ্জ বাজার ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট আউটলেট শাখা। ২০১৮ সালের ৫ মার্চ এই শাখার যাত্রা শুরু হয়। সাড়ে ৫ মাসের মধ্যে চরাঞ্চলে ব্যাংকটি মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। আউটলেটে গ্রাহকরা সব ধরনের ব্যাংকিং সেবা পাচ্ছেন। সাড়ে ৫ মাসের মধ্যে ইতিমধ্যে ছয় শতাধিক গ্রাহক হিসাব খুলে লেনদেন করছেন। প্রতিদিন ২২-২৪টি রেমিটেন্স গ্রাহক করছে। অচিরেই এ শাখায় বিদ্যুৎ বিল নেওয়া হবে বলে কর্তৃপক্ষ জানান। চরাঞ্চলে এমন একটি প্রতিষ্ঠান হওয়ায় চরবাসী খুশি। ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট আউটলেট শাখা তাদের কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে সফলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আর এই ব্যাংক শাখার দিকে মানুষের আস্থা ফিরে আসছে।

সোহাগ এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী শামীম আল মামুন জানান, পবিত্র ঈদ উপলক্ষে ব্যাংকে গ্রাহকদের ভিড় বাড়ছে। তবে ভিড় বাড়লেও আমাদের শাখার গ্রাহকরা হয়রানির শিকার হবে না। কারণ পরিচালনা পর্ষদ মোঃ মোজাহারুল ইসলাম, মোঃ ইয়াহিয়া দেওয়ান খানে সজাগ দৃষ্টি রাখছেন যাতে গ্রাহকরা সহজভাবে তাদের টাকা উত্তোলন করতে পারেন যাতে হয়রানির শিকার না হন। তিনি জানান, ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট শাখায় সঞ্চয়ী একাউন্ট, কারেন্ট একাউন্ট ও ডিপিএস একাউন্ট খোলা হয়।

বৈদেশিক টাকা গ্রাহকের একাউন্টে সরাসরি জমা হয়। গোপন নাম্বার ও টিআইএন নাম্বারে টাকা দ্রুত তোলা যায় অনলাইনে যেকোন শাখায় টাকা লেনদেন করা যায় এবং ফিক্সড ডিপোজিট করার সুযোগও রয়েছে।

এছাড়া অচিরেই এখানে বিদ্যুৎ বিল জমা নেয়া হবে। বিদ্যুৎ বিল জমা নেয়া শুরু হলে এ শাখার গ্রাহক সেবার মান আরও বেড়ে যাবে। মানুষের সেবা করাই আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য। টাঙ্গাইল সোনালী ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক, পূবালী, জনতা, কৃষি ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক, আল-আরাফা ব্যাংক, এশিয়া ব্যাংক, ইসলামী ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংক শাখা ঘুরে দেখা গেছে ঈদ উপলক্ষে গ্রাহকদের ভিড় বাড়ছে। আর এই ভিড় ঠেকাতে অফিসার-কর্মচারীরা অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এদিকে ব্যাংকের শাখাগুলোতে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Related Articles