টাঙ্গাইলে জেলা কওমী ওলামা পরিষদ ও তাবলিগত জামাত এর সাংবাদিক সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত ১৭ জুন পূর্ব নির্ধারিত জেলা তাবলিগের মারকায ও জেলা তাবলিগের ব্যাপারে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের এক তরফা সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে টাঙ্গাইলে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে জেলা কওমী ওলামা পরিষদ ও তাবলিগত জামাত এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, ধূলেরচর মাদ্রাসার প্রধান মুফতি আ. রহমান।
লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেন, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সিদ্ধান্তগুলো মানতে তারা অপারগতা প্রকাশ করেছেন। সিদ্ধান্তগুলো হচ্ছে ‘মাদরাসার ছাত্রদের মাধ্যমে তাবলিগ জামাতের কার্যক্রম পরিচালনা না করানো, মসজিদ ইমাম, খতিব ও মুআযযিনগন তাবলিগের কোনো পক্ষের ব্যাপারে কথা বলতে পারবে না। জেলা মারকায মসজিদে তাবলিগের কাজ বন্ধ রেখে জেলার সকল মসজিদে সা’দপন্থীদের অবাধে কাজ করার সুযোগ প্রদান’। এসব সিদ্ধান্ত না মানার বিষয়ে লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও উল্লেখ্য করেন, এগুলো কুরআন সুনাহেরর সাথে সাংঘর্ষিক, পূর্ববর্তী তিন হযরতজীর দাওয়াত ও তাবলিগের মানহাজের খেলাফ, ভারতের দারুল উলূম দেওবন্দ মাদরাসাসহ বিশ্বের সকল ওলামায়ে কেরাম বিশেষত বাংলাদেশের বরেণ্য সকল আলেমের সর্বসম্মত সিদ্ধান্তের খেলাফ।

সংবাদ সম্মেলনে তারা দাবি করেন, ‘গত ১৭ জুন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেওয়া সিদ্ধান্তসমূহ বাতিল ঘোষণা করতে হবে। মারকায মসজিদের আমলসমূহ ও সারা জেলায় তাবলিগের কাজ সমূহ কাকরাইলের মুরুব্বী এবং আহলে শুরার ওলামা হযরতগন টাঙ্গাইলের ওলামা হযরতগনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক পরিচালনা করা সুযোগ দিতে হবে। আলমী শুরার তাবলিগী সাথী ও ওলামায়ে কেরামের তত্ত্বাবধানে টাঙ্গাইল মারকায মসজিদে পূর্বের ন্যায় সকল আমল সম্পাদনের সুযোগ করে দিতে হবে। বাতিল ও বিপদগামী সা’দপন্থীদের সকল কার্যক্রম টাঙ্গাইলে নিষিদ্ধ করতে হবে। তাবলিগের কাজসহ দর্শীয় কাজে হক্কানী আলেমদের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন, ফেকাহ একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা মাহুমুদল হক, তাবলিগী সাথী বীর মক্তিযোদ্ধা খন্দকার বদরুল আলম, মতিউপর রহমান, জেলা সদর জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব নুর মোহাম্মদসহ জেলা অর্ধশতাধিক তাবলিগী সাথী।

Related Articles