শিশু আলআমিনের মুখে হাসি ফোঁটালেন জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম

শিশু আলআমিনের মুখে হাসি ফোঁটালেন জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিশু আলআমিন (১০) এর মুখে হাসি ফোঁটালেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম। সে টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার মো. আলিম মিয়ার ছেলে।
আলআমিনের মা লাভলী বেগম জানান, জন্মের পর থেকে আলামিনের ডান পায়ে সমস্যা থাকায় চলাচল করতে খুব কষ্ট হতো। দীর্ঘ প্রায় ৯ বছর খুব কষ্টে জীবন যাপন করেছে আলআমিন। গত বছর এক আত্মীর দেয়া তথ্য অনুযায়ি টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলামের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। এর পর থেকে আর্থিক অনুদান সকল ধরনের পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এমনকি ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা থেকে শুরু করে ঔষধ পর্যন্ত জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম কিনে দিয়েছেন। জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম মাঝে মাঝেই খোঁজ খবর নেন। পঙ্গু হাসপাতাল থেকে ছাড় পাওয়ার পরও আলআমিনের ঔষধ থেকে শুরু করে চিকিৎসা পত্র অনুযায়ি পায়ের জুতা পর্যন্ত কিনে দিয়েছেন। পরবর্তীতে যে কোন প্রয়োজনে পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম।
আলআমিনের মা লাভলী বেগম বলেন, আমাদের খুব কষ্টের সংসার ছিলো। যেখানে আমাদের সংসার চালাতে খুব কষ্ট হতো সেখানে আলআমিনের চিকিৎসাটা ছিলো অনিশ্চয়তার মধ্যে। টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম স্যার যে উপকার করেছেন তা স্মরনীয় হয়ে থাকবে। স্যারের জন্য আজ আলামিনের মুখে হাসি ফুটেছে। আমি জেলা প্রশাসক স্যারের মঙ্গল কামনা করছি।
এর আগেও গত মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে চান্স পাওয়া টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার সাহাপুর গ্রামের মেধাবী শিক্ষার্থী সুচিত্রা রাণীর শিক্ষার পুরো খরচ বহণ করার দায়িত্ব নিয়েছেন টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম।

Related Articles