বামদের মিছিলে পুলিশের লাঠিপেটা

নিউজ ডেস্ক

রাজধানীর মৎস্য ভবন এলাকায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে পাঁচ পুলিশসহ ২০ জনের মতো আহত হয়েছেন। তবে বাম নেতাদের দাবি তাদের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

সোমবার দুপুরে জোটের নেতাকর্মীরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে কালো পতাকা মিছিল নিয়ে যেতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

 

একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে ‘ভোট ডাকাতি’ অ্যাখ্যা দিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ‘কালো দিবস’ পালনের দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোট মিছিলের কর্মসূচি ঘোষণা করে। পূর্ব থেকে দেওয়া ঘোষণা অনুযায়ী দুপুরে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের ‍দিকে পতাকা হাতে মিছিল নিয়ে যাচ্ছিল নেতাকর্মীরা। এতে হাইকোর্ট-মৎস্যভবন এলাকার যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় পুলিশ তাদের রাস্তা ছাড়তে বলে। কিন্তু সড়ক না ছেড়ে তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে তর্কাতর্কি করে। একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে বাম জোটের নেতাকর্মীদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে পাঁচ পুলিশসহ ২০ জনের মতো আহত হয়। তবে বাম জোটের দাবি পুলিশের লাঠিচার্জে তাদের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

 

গণসংহতি আন্দোলনের ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘গণতন্ত্রের কালো দিবস পালন করার মিছিলে পুলিশ বাধা দেয় এবং লাঠিচার্জ করে। এ সময় গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, সাইফুল ইসলামসহ জোটের প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন আহত হয়। আহত অনেকে মাথা ফেটে গেছে এবং এদের মধ্যে নারী কর্মীরাও রয়েছেন।’

 

ডিএমপির রমনা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘সড়ক বন্ধ করে কালো পতাকা মিছিল করছিল। এসময় পুলিশ সড়ক ছেড়ে যেতে বললে তারা পুলিশের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদেরকে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পরে পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে।’

বর্তমানে ওই এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে। এছাড়া রাস্তায় যান চলাচলও স্বাভাবিক হয়েছে বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

 

(এম কন্ঠ/আর.কে/৩০ ডিসেম্বর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

 

 

Related Articles