জেনে রাখুন নিয়মিত হাঁটার উপকারিতা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

আমরা প্রায়ই শুনে থাকি এক সময় টাঙ্গাইলের মানুষ মামলা-মোকাদ্দামার কাজে হেঁটে ময়মনসিহং যেতো। কাজ শেষে ফিরেও আসতো। হাঁট বাজারে যেতে দু-পাই ছিলো সম্বল। কখনও কখনও মাথায় থাকতো ভারি বোঝা। মাইলের পর মাইল হেঁটে কাজ সারতো কদিন আগের মানুষরা। এখন সিএনজি অটোরিকশায় পর্যাপ্ত থাকায় আমরা অনেকে হাাটা ভুলে গেছি। আাঁধা ঘণ্টা অপেক্ষা করেও অটোরিকশায় যেতে হবে। এই বদঅভ্যাসের  ফলে আক্রান্ত হচ্ছি নানা ধরণের রোগে । অন্তত সুস্থ থাকার কথা ভেবে ভেবে হাঁটার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

ভালো থাকার জন্য নিয়মিত একটু হলেও শারীরিক পরিশ্রম জরুরি। চিকিৎসকেরা বলে থাকেন, হাঁটা এমন একটা উপায়, যার মাধ্যমে কষ্টসাধ্য পরিশ্রম ছাড়াও সহজেই সুস্থ থাকা যায়।

নিয়মিত ভারী শরীরচর্চা করার সময় সুযোগ ব্যস্ততার জীবনে আজকাল অনেকেরই থাকে না। কিন্তু ভালো থাকার জন্য নিয়মিত একটু হলেও শারীরিক পরিশ্রম জরুরি। চিকিৎসকেরা বলে থাকেন, হাঁটা এমন একটা উপায়, যার মাধ্যমে কষ্টসাধ্য পরিশ্রম ছাড়াও সহজেই সুস্থ থাকা যায়।

হাঁটতে গেলে প্রথমেই যে ভাবনাটা আসে সেটা হলো; কখন হাঁটবেন? চিকিৎসকেরা আজকাল বলছেন,  যেকোনো সময়েই হাঁটতে পারেন। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আপনি হাঁটার জন্য যখন সময় বের করতে পারবেন, তখনই হাঁটবেন। তবে হাঁটার জন্য সবচেয়ে ভালো সময় বিকেল। যারা সকালে হাঁটতে যান, তাদের জন্য পরামর্শ, ঘুম থেকে উঠেই হাঁটতে যাওয়া ঠিক না। ঘুম থেকে ওঠার কমপক্ষে ৩০ মিনিট পর হাঁটতে বের হওয়া উচিত।

প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটা উচিত। তবে আপনি চাইলে সপ্তাহে প্রতিদিন না-ও হাঁটতে পারেন। পাঁচ দিন ৩০ মিনিট করে ১৫০ মিনিট হাঁটলেও আপনি সুস্থ থাকবেন। মানে একজন মানুষের সপ্তাহে ১৫০ মিনিট হাঁটা জরুরি।

শারীরিক অবস্থা ভালো থাকলে আরও বেশি সময় ধরে আপনি হাঁটতে পারেন। তবে কখনোই ৩০ মিনিটের কম হাঁটা উচিত হবে না।  একবারে ৩০ মিনিট হাঁটার শারীরিক ক্ষমতা না থাকলে তিনবার ১০ মিনিট করে ৩০ মিনিট হাঁটতে পারেন। অথবা একবার ২০ মিনিট, অন্যবার ১০ মিনিট করে মোট ৩০ মিনিট করে নিতে পারেন।

হাঁটার উপকারিতা

  • ভালো ঘুমে সাহায্য করে

  • হাড় ও পেশি মজবুত করে

  • ১৫ মিনিট হাঁটলে ৫৬ ক্যালোরি শক্তি খরচ হয়, ওজন কমে

  • সৃজনশীল চিন্তা করতে সাহায্য করে

  • মানসিক চাপ, উদ্বেগ, ও টেনশন দূর করে শরীর-মন প্রাণবন্ত রাখে

  • রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে

  • ধমনির চাপ কমিয়ে হৃদরোগ প্রতিহত করে

  • স্মৃতিশক্তি বাড়ায় এছাড়া ইনসুলিন তৈরি করে গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

(মজলুমের কণ্ঠ/২২জানুয়ারি/আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles