মির্জাপুরে অভিযোগ করতে এসে নিজেই ৭ ঘন্টা থানা হাজতে

মির্জাপুর প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর প্রতিপক্ষের হামলায় আহত স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে থানায় অভিযোগ করতে আসলে অভিযোগ না নিয়ে আহত ছেলেকে প্রায় ৭ ঘন্টা থানা হাজতে আটকে রাখার অভিয়োগ পাওয়া গেছে। আজ মঙ্গলবার মির্জাপুর থানায় এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃত আহত ছেলে হলো সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালক জাকির হোসেন (২৫)। সে মির্জাপুর উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নের চামারী ফতেপুর গ্রামের আদম আলীর ছেলে।

ভুক্তভোগী জাকির জানান, গত রোববার সন্ধার দিকে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে তার প্রতিবেশি (সম্পর্কে চাচা) ফেরদৌস মিয়ার সঙ্গে তাঁর বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ফেরদৌস তাঁকে লাঠি দিয়ে পেটায়। এ ঘটনা দেখে তাঁর মা বেগম এগিয়ে গেলে তিনি তাঁকে লাঠি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন। এতে তার মা ও সে গুরুতর আহত হয়। পরে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে জামুর্কীস্থ মির্জাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে দুইদিন চিকিৎসার পর আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে জাকির এবং তার মা বেগমকে নিয়ে তার বাবা মির্জাপুর থানায় অভিযোগ করতে আসলে কর্তব্যরত পুলিশের উপপরির্শক (এসআই) ফজলুর রহমান অভিযোগ না নিয়ে জাকিরকে আটক করে থানা হাজতে রাখেন। এ সময় তারা অনেক কাকুতী মিনতি করলেও তিনি তাঁকে ছাড়েননি।

পরে বিষয়টি মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সায়েদুর রহমান জানলে তাঁর নির্দেশে রাত সাতটার দিকে ফজলুর রহমান তাঁকে ছেড়ে দেন।

জাকির হোসেনের মা বেগম বলেন, থানায় অভিযোগ করতে গেলে পুলিশ তাঁর আহত ছেলেকে আটক করেন। আহত দেখেও পুলিশের ওই কর্মকর্তার মায়া হয়নি।

এসআই ফজলুর রহমান জানান, মারামারির ঘটনায় তাঁদের প্রতিপক্ষ থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে। এলাকায় গিয়ে তাঁদের না পাওয়ার কারণে থানার কাছে একটি দোকানের পাশে পেয়ে বিকেল চারটার দিকে তাঁকে আটক করা হয়েছিল। ওসি সাহেবের নির্দেশে পরে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সায়েদুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আটকের বিষয়টি জানতে পেরে তাকে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

(মজলুমের কণ্ঠ/২৯জানুয়ারি/আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles