নাগরপুরে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত

নাগরপুরে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত

নাগরপুর প্রতিনিধিঃ

সারাদেশের ন্যায় টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ১৫৩ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একযোগে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে ভোটগ্রহন চলে দুপুর ১টা পর্যন্ত। শিশুদের মধ্যে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সৃষ্টির লক্ষে অনুষ্ঠিত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা বিদ্যালয় আঙ্গিনায় সাদা-কালো ও কালার পোস্টার সাঁটিয়েছে। তাছাড়া অভিভাবকরাও বিদ্যালয় আঙ্গিনায় নিজ নিজ প্রার্থীদরে পক্ষে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভোট দেয়ার বিষয়ে কথা বলছেন।

রবিবার উপজেলার বিভিন্ন সরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয় সরেজমিন ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এক যোগে উপজলোর ১৫৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। তৃতীয় শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা এ নির্বাচনে ভোট প্রদান করছে।

নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ করার লক্ষে শিক্ষার্থীদের মধ্যে থেকেই নির্বাচন কমিশনার, প্রিজাইডিং, পোলিং কর্মকর্তা এবং নিরাপত্তার কাজে পুলিশ ও আনসার সদস্য নিয়োগ করা হয়েছে।

তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণি থেকে সাতজন প্রার্থী জয়ী হবে। তারা স্বাস্থ্য, বন ও পরিবেশ বিষয়ক, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, আপ্যায়ণসহ সাতটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করবে বলে প্রধান শিক্ষক আব্দুল আজিজ মিঞা জানান। পংবাইজোড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচনে তৃতীয় শ্রেণি থেকে সাব্বির মিয়া, রিমন মিয়া, সেজান মিয়া চতুর্থ শ্রেণি থেকে মো.রিমন আহম্মেদ, আবু সালেহ নাবিল, সাহিদা আক্তার জুই, পঞ্চম শ্রেণি থেকে নাঈম ইসলাম, সুমনা আক্তার ও আয়শা আক্তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। সলিমাবাদ ইউনিয়নের তেবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচনে সাতটি পদে ১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। পঞ্চম শ্রেণির প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নাঈম বলে, বিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে শিক্ষার্থীরা তাকে ভোট দিয়ে জয়ী করবে।

উপজেলা সদরের যদুনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক কল্যাণ সমিতির সাধারন সম্পাদক মো.হারুন অর রশিদ বলেন, এ বছর নির্বাচনে শিক্ষার্থী ছাড়াও অভিভাবকদের মধ্যে অনেক বেশি উৎসাহ উদ্দীপনার সৃিষ্ট হয়েছে। লাড়–গ্রাম সরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয়ের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা বলে, নির্বাচনে জয়-পরাজয় যাই হোক তা আনন্দের সঙ্গে মেনে নেব। আমরা সরাসরি নির্বাচনে অংশ নিতে পেরেই আনন্দিত।

নাগরপুর উপজেলা সহকারি শিক্ষা অফিসার জি এম ফুয়াদ মিয়া বলেন,শিশুকাল থেকে পরিবেশ উন্নয়নমূলক কর্মসূচীতে অংশ নেয়া, বিদ্যালয়ের লেখাপড়া, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বেড়ে উঠার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে এবং শিশুদের মধ্যে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ গড়ে তোলার জন্যই এই নির্বাচনের আয়োজন করা হয়েছে।

(মজলুমের কণ্ঠ/২৩ ফেব্রুয়ারি/আর.কে)

 সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles