শিশুরাও স্মার্টফোনে আসক্তি হচ্ছে

অনালাইন ডেস্ক:

বর্তমানে অন্যতম বড় সমস্যা হল শিশুদের স্মার্টফোনের আসক্তি। এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবও মারাত্মক। তাই শিশুদের স্মার্টফোন আসক্তিতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। বিশেষ বাবা-মার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। অভিভাবকদের উচিত তাদের সন্তানদের প্রতি ঠিকঠাক মনোযোগ দেয়া এবং সবাইকে নিয়ে পারিবারিক সময় কাটানো।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, কিশোর-কিশোরীরা স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে এক ধরনের আকর্ষণ বোধ করে যে, মোবাইল ফোনে মেসেজ এলে সাথে সাথেই তার জবাব দিতে হবে। এর ফলে আসক্তি ক্রমশ আরও বাড়তে থাকে।

মনোবিজ্ঞানীদের মতে, শিশু-কিশোরদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহার যে প্রভাব ফেলছে, তা সত্যিই বিবেচনা করার মতো বিষয়। এজন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

সম্প্রতি যন্ত্র ব্যবহারের সময় কিছু সতর্কতা এবং পদ্ধতি অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন ব্রিটেনের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তারা। যেগুলো অনুসরণ করে শিশুদের নিরাপদ রাখা যেতে পারে। প্রতি ঘণ্টা অন্তর শিশুদের অবশ্যই মোবাইল বা কম্পিউটারের স্ক্রিন থেকে চোখ সরানো উচিত, তারা বলছেন। শিশুদের নিরাপদ রাখতে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর আরো ভূমিকা রাখা উচিত বলে তারা মনে করেন।

সম্প্রতি ভারতের চার্টার বিশ্ববিদ্যালয় তাদের একটি গবেষণায় দেখিয়েছে, স্মার্টফোনের অধিক ব্যবহারে শিশুর চোখের রেটিনা, কর্নিয়া এবং অন্যান্য অংশের ক্ষতি হওয়ার বিপুল সম্ভবনার রয়েছে। এছাড়াও অধিক সময় ধরে মোবাইল ব্যবহারে একদিকে যেমন শিশুরা পড়াশোনায় মনোযোগ হারাচ্ছে, আবার তাদের মেজাজও হয়ে উঠছে খিটখিটে স্বভাবের।

অতিরিক্ত মাত্রায় স্মার্টফোন ব্যবহারের ফলে শিশুরা নানানরকম সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছে। যার মধ্যে অন্যতম হল পড়াশোনায় মনোযোগের অভাব। যার সুদুর প্রসারী প্রভাব পড়তে পারে শিশুর পড়াশোনাতেও। কয়েকটি উপায় অবলম্বন করে সহজেই শিশুর স্মার্টফোনের ওপর আসক্তি কমানো যায়।

  • শিশুর অভ্যাস বদল করুন। আপনার শিশু যেই সময়টি স্মার্চফোন ব্যবহার করে সেই সময়টা তাঁকে অনেয কোনও কাজে মগ্ন রাখার চেষ্টা করুন। যেমন- গৃহস্থালির কোনও কাজে আপনাকে সাহায্য করতে বলুন, গল্পের বই পড়তে দিন, কোনও ছোট-খাটো কাজ দিন এবং সেটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ করতে বলুন। প্রথম প্রথম হয়তো সে কান্নাকাটি করবে, কিন্তু একটা সময় পর ঠিক অভ্যাস হয়ে যাবে।

  • বাইরে খেলতে পাঠান। আজকালকার দিনে কংক়্রিটের ভিড় এতটাই বেড়ে গিয়েছে যে, শিশুদের বাইরে খেলতে যাওয়ার প্রবণতা অনেকটাই কমে গিয়েছে। স্মার্টফোনের আসক্তি অনেকটাই কমে আসবে যদি তাকে বাইরে খেলতে যাওয়ার সুযোগ করে দেন।

  • বাড়ির বয়স্ক মানুষদের সংস্পর্শে নিয়ে আসুন- বাড়ির বয়স্ক মানুষ যেমন- দাদু বা ঠাকুমা-এদের চোখের মণি কিন্তু আপনার সন্তান। তাই দিনে যতটা সময় পারা যায় আপনার সন্তানকে তাদের সংস্পর্শে রাখার চেষ্টা করুন। এতে তাদেরও সময় যেমন কাটবে, তেমনই আপনার সন্তানের স্মার্টফোনের প্রতি আসক্তিও তত কম হবে।

  • আদর্শ হওয়ার চেষ্টা করুন। শিশুর ধর্মই হল যে সে যা দেখবে সেটাই অনুকরণ করার চেষ্টা করবে। তাই আপনিও আজ থেকে দিনের মধ্যে যতটা কম সময় সম্ভব স্মার্টফোন ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

  • স্মার্টফোন দেখার সময় বেঁধে দিন। দিনের একটি নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে স্মার্টফোন ব্যবহার করা যাবে না- এমন নিয়ম চালু করুন। ওই সময়ের বাইরে পড়াশোনা বাদে অন্য যে-কোনও কাজ করলেও স্মার্টফোন ব্যবহার করতে দেবেন না। প্রয়োজনে একটু কঠোর হন। দেখবেন ধীরে ধীরে তার এই আসক্তি কেটে গিয়েছে।

  • খাবারের সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা। কারণ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে গল্পগুজব করাটা উঠতি বয়সের সন্তানদের জন্য খুব ভালো হয়।

  • ঘুমানোর আগে থেকেই বা বিছানায় মোবাইল ফোন ব্যবহার করার অভ্যাস পরিত্যাগ করা।

  • পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অনলাইনের নিরাপদ থাকার বিষয়ে আলাপ আলোচনা করা, যাতে তারা ইন্টারনেটের হয়রানি বা উস্কানি সম্পর্কে সতর্ক হয়। এরকম পরিস্থিতি দেখা গেলে তাদের কি করা উচিত, সেটাও ঠিক করে রাখা।

  • রাস্তা পারাপারের মতো যেসব ঘটনায় পুরো মনোযোগ দরকার, এরকম সময়ে মোবাইল ফোন ব্যবহার না করা।

(মজলুমের কণ্ঠ/২০ ফেব্রুয়ারি/আর.কে)

 সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles