ফাইনালে খেলবেন কি না, সিদ্ধান্ত মেসিই নেবেন

স্পোর্টস ডেস্ক:

গত বুধবার স্প্যানিশ সুপারকোপার সেমিফাইনালে মাঠে খেলায় মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন, ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং কিংবা আতোয়ান গ্রিজমানরা উত্তেজনা ছড়ালেও আসল মানুষই ছিলেন না। মাস্ক মাঠের পরে গ্যালারিতে বসে থাকতে দেখা গেছে লিওনেল মেসিকে। দলের গোলে উল্লাসে মেতেছেন, গোল খেলে হতাশ হয়েছেন, জয়ের পর উদ্‌যাপনও করেছেন, সুপারকোপার সেমিফাইনালে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে ম্যাচে এ-ই ছিল লিওনেল মেসির ভূমিকা। বলা হচ্ছিল, চোটের কারণে সে ম্যাচটা খেলা হয়নি মেসির। সেদিন না খেললেও আগামী রোববার সুপারকোপার ফাইনালে অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে মেসি খেলবেন কি না, সে নিয়েও এখনো কেউ নিশ্চিত নন। এমনকি কোচ রোনাল্ড কোমানও নন।

কোমান তো ম্যাচের আগে সরাসরি স্বীকারই করে ফেললেন, ফাইনালে মেসি মাঠে নামবেন কি না, সে সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার তাঁর নেই। ওই সিদ্ধান্ত মেসি নিজেই নেবেন। নিজের শারীরিক অবস্থা বুঝে মেসি নিজেই কোচকে বলবেন, তিনি ম্যাচ খেলার জন্য যথেষ্ট ফিট কি না, ‘ফাইনালে ও খেলবে কি না, সেটা সিদ্ধান্ত নেবে ও-ই। নিজের শরীর সম্পর্কে ও নিজেই ভালো জানে। আমাদের অপেক্ষা করতে হবে এটা দেখার জন্য ও যে ওর যেসব হালকা চোট সমস্যা আছে, সেগুলো ম্যাচের আগে পুরোপুরি ঠিক হয় কি না।’

কোমান জানেন, শেষমেশ মেসি না খেললে মেসিকে ছাড়াই বিলবাওকে হারানোর পরিকল্পনা করতে হবে তাঁকে, ‘মেসি যদি না খেলে, তাহলে আরেকটা খেলোয়াড় ওর জায়গায় খেলবে আর মেসি ছাড়াও আমাদের পরিকল্পনা একই থাকবে, লক্ষ্য থাকবে একই। মেসিকে শতভাগ ফিট হতে হবে। এটা মৌসুমের শেষ ম্যাচ নয়, তাই ও এই ম্যাচটা খেলার জন্য যথেষ্ট ফিট কি না, সে সিদ্ধান্তটা ওকেই নেওয়া লাগবে।’

এবার মৌসুমের শুরু থেকেই বেশ উত্থান-পতনে সময় কাটছে মেসির। মৌসুমের শুরু থেকে প্রতিপক্ষ গোলের সামনে তাঁর ফর্ম নিয়ে ছিল আলোচনা। গোল যা-ও করছিলেন, তার বেশির ভাগই তখন ছিল পেনাল্টি থেকে। এর সঙ্গে মৌসুমের আগেই আগস্টে তাঁর বার্সা ছাড়তে চেয়ে বুরোফ্যাক্স পাঠানো ও তার পরের নাটক নিয়ে আলোচনা তো ছিলই। প্রশ্নও ছিল, চুক্তিসংক্রান্ত জটিলতায় বার্সা ছাড়তে না পারা মেসির মন কি বার্সায় আছেন?

সেমিতে মাঠের বাইরে থেকে এভাবেই সতীর্থদের উৎসাহিত করেছিলেন মেসি।

সেমিতে মাঠের বাইরে থেকে এভাবেই সতীর্থদের উৎসাহিত করেছিলেন মেসি। 
ছবি: এএফপি

নতুন বছরের শুরু থেকে অবশ্য মেসি বেশ ভালো খেলছেন, ৩ ম্যাচে করেছেন ৪ গোল। বার্সাও দারুণ খেলছে। অবশ্য এ আর আশ্চর্য কী! মেসির ফর্মের সঙ্গে বার্সার ভালো খেলা না খেলা তো সমানুপাতিকই! মেসিকেও মাঠে হাসিখুশি দেখাচ্ছিল।

কিন্তু চোটের যেন সেটা সহ্য হলো না। গত মৌসুম থেকেই মেসি এক-আধটু চোট নিয়ে খেলে যাচ্ছিলেন, এই মৌসুমের শুরু থেকে তাঁর ফর্মের উত্থান-পতনের একটা বড় কারণ মানা হয় এভাবে চোটকে সঙ্গী করে খেলাকেও। গত ৩০ ডিসেম্বর লিগে এইবারের বিপক্ষে ম্যাচেও চোটের কারণে খেলেননি মেসি। এরপর যা-ও তিনটা ম্যাচ খেলেছিলেন, সোসিয়েদাদের বিপক্ষে আর খেলাই হলো না।

গ্রানাদার বিপক্ষে লিগে বার্সেলোনার সর্বশেষ ম্যাচেই ৬৫ মিনিটে মেসিকে তুলে নেন বার্সেলোনা কোচ রোনাল্ড কোমান। এরপর সোসিয়েদাদ ম্যাচের আগে অনুশীলনে চোটের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। সোসিয়েদাদের বিপক্ষে আর তাই মেসিকে বেঞ্চেও রাখেননি কোমান। তা টের স্টেগেনের চোখধাঁধানো নৈপুণ্যে আর পেনাল্টি-ভাগ্যে সেই ম্যাচটা তো জিতেছে বার্সা, উঠে গেছে সুপারকোপার ফাইনালে।

তবে বার্সা সমর্থকদের জন্য আশার খবর, এর মধ্যেই অনুশীলনে ফিরেছেন মেসি। ফাইনালের আগে শনিবারের চূড়ান্ত অনুশীলনে বেশ ভালোভাবেই সতীর্থদের সঙ্গে গা গরম করেছেন এই আর্জেন্টাইন তারকা। দেখা যাক, মূল একাদশে থাকার মতো যথেষ্ট ফিট হতে পারেন কি না!

(মজলুমের কণ্ঠ / ১৭ জানুয়ারি / আর.কে.)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles