ঘাটাইলের সাগরদিঘীতে জমে উঠেছে জুয়ার আসর

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার সাগরদিঘীতে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ির কয়েকজন কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে শুরু হয়েছে রমরমা জুয়ার আসর (কাইট খেলা)। আর এই জুয়া পরিচালনায় রয়েছেন লক্ষীন্দর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য বেইলা গ্রামের হালিম, সাগরদিঘীর জনাব আলী, শফি ও টাঙ্গাইলের জুলহাস ওরফে খিচুরী জুলহাসসহ ৭/৮জন। এদিকে এই জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে সাগরদিঘীসহ আশেপাশের এলাকায় প্রতিনিয়তই ছিনতাই ও চুরির ঘটনা ঘটছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছে।
খেঁাজ নিয়ে যানা যায়, বিভিন্ন স্থান থেকে আসা জুয়াড়–রা মিলিত হন ঘাটাইলের সাগরদিঘী বাজারের ইউপি সদস্য হালিমের অফিসে। সেখান থেকে নিয়ে যাওয়া হয় একেকদিন একেক জুয়ার স্পটে। সেখানে দুপুর দুইটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত চলে এই কাইট নামের জুয়া খেলা। তবে এই জুয়া খেলার বিষয়ে ঘাটাইল থানা পুলিশ না জানলেও সাগরদিঘী ফাঁড়ি অবগত। তাই ফাঁড়ির কয়েকজন কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করেই চলছে দীর্ঘদিন ধরে এই জুয়া খেলা।
স্থানীয়রা জানান, সুযোগ সুবিধামত একেক দিন একেক স্থানে জুয়ার আসর বসানো হয়। এর মধ্যে সাগরদিঘী বাজারের উত্তর পাশে, গজারি বন এবং অনিক পার্কের পাশে নিরাপদ স্থান হিসেবেই বেছে নিয়েছেন জুয়াড়িরা। এই জুয়ার আসরে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকার জুয়া খেলা হয় বলে
জানিয়েছেন নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক জুয়াড়–।
তিনি জানান, একজন জুয়াড়– প্রতি বোর্ডে ৫০০ থেকে ৫ হাজার টাকা খেলে থাকেন।
কারো কারো প্রতিদিন ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে আবার কারো কারো লাভ হচ্ছে। এটাই জুয়া খেলা। তবে স্থানীয় প্রশাসন এবং প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করার কারনেই নিরাপদে এই জুয়া খেলা চলছে দীর্ঘদিন ধরে। আর দীর্ঘদিন ধরে চলা এই জুয়া খেলায় স্থানীয় অনেক নতুন নতুন খেলোয়ারও অংশ নিচ্ছেন।
মজলুমের কন্ঠ/৩০ মার্চ
(মেহেদী)
সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles