পাত্র চেয়ে তরুণীর আজব বিজ্ঞাপন !

অনলাইন ডেস্ক:

কয়েকদিন আগে ঘুম ভেঙে দেশের শীর্ষস্থানীয় এক দৈনিকের পাত্র-পাত্রী চাই বিজ্ঞাপনের কলামে আজব এক বিজ্ঞাপন দেখেন ভারতবাসী। পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন দিয়েছেন এক তরুণী।

নিজেকে ‘ছোট চুলের পিয়ার্সিং করা মুক্তমনা নারীবাদী’ হিসেবে পরিচয় দেওয়া ওই নারীর বিজ্ঞাপন মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়। কারণ পাত্র-পাত্রী চাই বিজ্ঞাপনের প্রচলিত ধারণার বাইরে গিয়ে অদ্ভূত এক বিজ্ঞাপন দিয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপনে বলা হয়ে ৩০ বছর বসয়ী শিক্ষিত ওই নারী ‘পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে, সামাজিক কাজ করেন’। তিনি ‘সুদর্শন, সুপ্রতিষ্ঠি ‘ পাত্র চেয়ে বিজ্ঞাপন দিয়েছেন। পাত্রের বয়স অবশ্যই ২৫ থেকে ২৮ বছরের মধ্যে হতে হবে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি। এছাড়া পাত্রকে হতে হবে বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান। তার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা থাকতে হবে। থাকে হবে একটা বাংলো আর কমপক্ষে ২০ একর জমির ফার্মহাউস।

ভারতের একজন প্রতিষ্ঠিত কমেডিয়ান অদিতি মিত্তাল ওই বিজ্ঞাপন টুইটারে শেয়ার করলে তা খুব দ্রুত ভাইরাল হয়। এই আজব বিজ্ঞাপনের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন অনেকে। তবে বিবিসি অনুসন্ধান চালিয়ে দেখেছে এটা নিছকই মজার ছলে দেওয়া বিজ্ঞাপন।

অনেকেই এই বিজ্ঞাপন নিয়ে হাসাহাসি করেছেন। অনেকে তাকে লোভী হিসেবে উল্লেখ করেছেন। কঠোর ভাষায় সমালোচনা করেছেন এই বিজ্ঞাপনের।

বিজ্ঞাপনের সঙ্গে দেওয়া ই-মেইলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপনদাতাকে খুঁজে বের করে বিবিসি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নারী জানান, নিজের ৩০তম জন্মদিনে ভাই আর বন্ধুকে নিয়ে মজা করার জন্যই এই বিজ্ঞাপন দিয়েছিলেন তিনি।

তিনি জানান, ৩০ বছর বয়স ভারতীয় নারীদের জন্য মাইলফলক। এই বয়স পার হলেই সমাজ বিয়ে করে থিতু হওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে।

তিনি জানান, পাত্র-পাত্রী চাই বিজ্ঞাপনে পুরুষরা সবসময় লম্বা, সুশ্রী নারী চেয়ে নিজেদের সম্পদের ফিরিস্তি দিয়ে থাকেন। কিন্তু যদি পাশার দান উল্টে যায়, কোনো নারী যদি পাত্র চাওয়ার ক্ষেত্রে এ ধরনের মানদণ্ড নির্ধারণ করে দেয়, তাহলে সেটা পুরুষরা হজম করতে পারেন না। এই লিঙ্গ বৈষম্য চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেওয়াই হয়তো ওই নারীর লক্ষ্য ছিল।

 

(মজলুমের কণ্ঠ / ৮ আগস্ট/ আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles