কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজে ক্লাস শুরু

মির্জাপুর প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজে ৫৪৪ দিন পর গতকাল সোমবার থেকে ক্লাস শুরু হয়েছে। মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের নিরাপদে রাখতে সরকার গত বছর মার্চ থেকে মেডিকেল কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেন। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সারাদেশে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয় সরকার।

সোমবার থেকে ক্লাস শুরু হওয়ায় শিক্ষার্থীদের পথচারনায় মুখরিত হয়ে উঠেছে কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাস। পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে উৎসবের আমেজ শুরু হয়েছে। প্রাণের বিদ্যাপিঠ ফিরে পেয়ে উচ্ছসিত ছাত্রীরা। তারা যেন হারিয়ে যাওয়া প্রিয় ক্যাম্পাস প্রাঙ্গন ফিরে পেয়েছে। ছাত্রীদের পাশাপাশি মেডিকেল কলেজের শিক্ষক ও কর্মচারীদের মধ্যেও আনন্দের কমতি নেই। গত ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস প্রথম, দ্বিতীয় ও পঞ্চম বর্ষ এবং বিডিএস দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম বর্ষের ছাত্রীদের ক্লাস শুরু হয়েছে বলে কলেজের অফিসার্স ইনচার্জ রতন সরকার নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরু হওয়ায় মির্জাপুর বাজারের ব্যবসা বাণিজ্যেও চাঙা ভাব দেখা দিয়েছে। এতে ব্যবসায়ীদের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার বেলা পৌনে বারোটায় কলেজে গিয়ে দেখা গেছে, ছাত্রীদের ক্লাস চলছে। কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজে প্রথম বর্ষে ১১৫, দ্বিতীয় বর্ষে ১১৫, তৃতীয় বর্ষে ১০৪, চতুর্থ বর্ষে ১১০, পঞ্চম বর্ষে ১০৩, বিডিএস (ডেন্টাল) ১১৩ ও এমবিবিএস পরীক্ষার্থী ১২০ ছাত্রী রয়েছে। এরমধ্যে ভারতের ৩০০, নেপালের ১৪ ও ভূটানের ১জন শিক্ষার্থী রয়েছে। এছাড়া ৩০ জন অনিয়মিত ছাত্রী রয়েছে বলে জানা গেছে। প্রতিদিন সকাল আটটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত ক্লাস চলে।

গত বছর করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকার গত বছর মার্চ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করলে কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজও বন্ধ হয়ে যায়। পরে ছাত্রীরা নিজ নিজ বাড়িতে চলে যায়। দীর্ঘ ১৭ মাস পর গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সরকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস শুরুর ঘোষণা দেন। ঘোষণার পর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছাত্রীরা কুমুদিনী ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করেছে। গতকাল সোমবার পর্যন্ত প্রথম বর্ষের ৪১, দ্বিতীয় বর্ষের ৪০, তৃতীয় বর্ষের ৮, চতুর্থ বর্ষের ১১ ও পঞ্চম বর্ষের ৬৭ জন ছাত্রী ক্যাম্পাসে পৌছেছেন। এরমধ্যে ৫৩ জন বিদেশী ছাত্রীও রয়েছে। ভিসা জটিলতায় অন্য বিদেশী ছাত্রীরা আসতে পারেনি বলে রতন সরকার জানিয়েছেন।

মির্জাপুর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি গোলাম ফারুক সিদ্দিকী বলেন, দীর্ঘদিন করোনার আঘাত এবং সকল শিক্ষা পতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ব্যবসা বাণিজ্যে স্থবিরতার সৃষ্টি হয়। এতে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকার খুলে দেয়ায় কিছুটা হলেও ব্যবসার ক্ষেত্রে চাঙা ভাব ফিরে এসেছে। এতে ব্যবসায়ীরা খুব খুশি বরে তিনি জানান।

কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. মো. আব্দুল হালিম বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী এমবিবিএস কোর্সের প্রথম, দ্বিতীয় ও পঞ্চম বর্ষ এবং বিডিএস (ডেন্টাল) দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম বর্ষের ক্লাস চালু করা হয়েছে। এছাড়া অনলাইন ও অফলাইনে নিয়মিত ক্লাস অব্যাহত থাকবে। ছুটিতে থাকা বিদেশী ছাত্রীদের ভিসা প্রসেসিং হলেই চলে আসবে বলে তিনি জানান।

(মজলুমের কণ্ঠ / ১৪ সেপ্টেম্বর/ আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles