সখীপুরে নিজ টাকায় সড়ক মেরামত করছেন যুবলীগ নেতা

সখীপুর প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের সখীপুর বাজার থেকে ঘাটাইলের গারোবাজার পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার ও আগামী পাঁচ বছরের জন্য রক্ষণাবেক্ষণের কাজটি পেয়েছেন হক ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি ঠিকাদারি সংস্থা। ওই সংস্থার মালিক হচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া বাদল। নয় কোটি ৩৪ লাখ টাকার এ কাজটি ঠিকাদারের সঙ্গে এলজিইডির চুক্তি সই হয় ২০১৭ সালের ২০ জুন। চুক্তি অনুয়ায়ী ওই ঠিকাদার গত নয় মাসে ওই সড়কটি সংস্কার করলেও শুধু তিনটি স্থানে ৫৭০ মিটার গর্ত অংশ বাদ রাখেন। চলতি বর্ষায় ওই ৫৭০ মিটার সড়কটি খানাখন্দে ভরে গেছে।

আগামী কয়েক মাসেও ওই ৫৭০ মিটার ভাঙা সড়ক মেরামতের কোনো সম্ভাবনা নেই বলেও তিনি জানান। এতে করে ওই সড়কে চলাকারীদের প্রতিনিয়তই দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নিজ দলের সম্মান বাচাঁতে সখীপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর তালুকদার ওইসব গর্ত মেরামতের উদ্যোগ নেন। তিনি গত মঙ্গলবার দিনব্যাপি ওই সড়কের কয়েকটি বড় গর্ত ভরাট করে সাময়িক যান চলাচলের ব্যবস্থা করে দেন।

গত মঙ্গলবার ওই সড়কের খাদ্যগুদাম এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ওইসব গর্তে ট্রাক ভর্তি ইট ও বালু ফেলা হচ্ছে। যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর তালুকদার লুঙ্গি পড়ে চার-পাঁচজন শ্রমিক নিয়ে ওই সড়কের গর্তগুলো ভরাটের তদারকি করছেন। আশপাশের লোকজনও তাকে এ কাজে সহযোগিতা করছেন।

গর্তের পাশের দোকানদার শমসের আলী বলেন, রাস্তার ঠিকাদার কাজ করছেন না, সরকার দেখেও দেখছেন না। পৌরসভার মেয়র চোখ বুজে আছেন। মানুষের দুর্ভোগ কমাতে জাহাঙ্গীর তালুকদার এগিয়ে এসেছেন এজন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানাই।

চলাচলকারী সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালক বেলায়েত হোসেন বলেন, অনেক কষ্টে এ সড়ক দিয়ে চলাচল করি। নেতা রাস্তা মেরামত করে দেওয়ায় আজকে সহজেই পার হতে পারলাম।

এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীর তালুকদার বলেন, সখীপুর পৌরসভার সীমানার ভেতরে সড়কে কোথাও কোন গর্ত থাকলে আমি সঙ্গে সঙ্গে ওই গর্ত বালু ও খোয়া দিয়ে ভরাট করে দেই। তিনি দাবি করেন তিনি নিজের পকেটের টাকায় গত পাঁচ বছরে তিনি কমপক্ষে পাঁচ কিলোমিটার সড়কের গর্ত ভরাট করেছেন। কেন নিজের পকেটের টাকায় সড়ক উন্নয়নে এগিয়ে আসছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি পৌরবাসীর সেবা করতে চাই। আগামীতে দল আমাকে মেয়র পদে মনোনয়ন দিলে নির্বাচন করা ইচ্ছা আছে।

সখীপুর সরকারি পাইলট মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ খলিলুর রহমান জানান, খাদ্যগুদামের পাশে সড়কে এতোই ভাঙাচুরা যে আমার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পায়ে হেঁটে আসতেও কষ্ট হয়।

ওই সড়কের ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম কিবরিয়া বাদল বলেন, সখীপুর-গারোবাজার সড়কের তিনটি স্থানে ৫৭০ মিটার সড়ক বেশি ভাঙা। কার্পেটিং করলে টিকবে না। তাই এলজিইডি বিভাগ ওই তিন স্থানে আরসিসি ঢালাই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আমার ৩০ কিলোমিটার সড়ক থেকে কিছুদিন আগে ৫৭০ মিটার সড়ক কেটে নেওয়া হয়েছে। ফলে ওই ৫৭০ মিটারে আমার কোনো দায়িত্ব নেই। তবে এ সড়ক সংস্কারে কেউ এগিয়ে এলে তাঁকে স্বাগত জানাই।

টাঙ্গাইল এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. গোলাম আজম বলেন, শিগগিরই ওই ৫৭০ মিটার সড়ক সংস্কারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। এরপরেও কেউ সংস্কারে এগিয়ে এলে আমরা তো আর বাধা দিতে পারি না।

পৌর মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুহানিফ আজাদ বলেন, পৌরসভার সীমানায় হলেও ওই সড়কটি এলজিইডির। সরকার ওই সড়কের জন্য ঠিকাদার নিয়োগ করেছেন। অন্য কারও ওই সড়ক নির্মাণ করার দরকার নেই। ঠিকাদার যেন তারাতারি সড়কটি সংস্কার করে দেন সে জন্য কথা বলা হচ্ছে।

Related Articles