নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল রাজধানী

অনলাইন ডেস্ক:

নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। রাস্তা অবরোধ করে তারা বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে প্রথমে রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় শিক্ষার্থী মো. মাইনুদ্দীন ইসলাম দুর্জয় (১৯) নিহতের প্রতিবাদে রাস্তা বন্ধ করে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। তারা নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান নয় দফা আন্দোলনের পক্ষে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এরপর একই দাবিতে রাজধানীর ধানমন্ডি, মতিঝিল শাপলা চত্বর, সাইন্সল্যাব মোড় এবং মোহাম্মদপুরে আন্দোলনে নামে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে ২০১৮ সালে নজিরবিহীন আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা। তখন এ ব্যাপারে সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিলে আন্দোলন স্থগিত করা হয়। গত বুধবার রাজধানীর গুলিস্তানে সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নটরডেম কলেজের এক শিক্ষার্থী মারা যান। এর প্রতিবাদে আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। এর রেশ কাটতে না কাটতেই সোমবার রাতে রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় মারা যান এসএসসি পরীক্ষার্থী এক শিক্ষার্থী। এর প্রতিবাদে রাতেই কমপক্ষে নয়টি বাসে আগুন দেওয়া হয়। মঙ্গলবার সকাল থেকে আন্দোলনে নামেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এতে প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সকাল থেকে যানজটের ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী। অনেকে হেঁটে গন্তব্যে পৌঁছেন। এছাড়া নয়াপল্টনে বিএনপির সমাবেশ থাকায় রাজধানীবাসীর দুর্ভোগ আরও বেড়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে শিক্ষার্থীদের অবরোধ

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ১০টা থেকে রামপুরা ব্রিজের কাছে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ইম্পেরিয়াল কলেজ, ন্যাশনাল আইডিয়াল ও রাজধানী আইডিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন। এতে ওই সড়কে যান চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। সৃষ্টি হয়েছে প্রচণ্ড যানজটের।

বেলা সাড়ে ১১টা থেকে ধানমন্ডি-২৭ রাপা প্লাজার সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। এতে মিরপুর রোডে যান চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে।

বেলা পৌনে ১১টার দিকে নীলক্ষেত মোড় অবরোধের চেষ্টা করেন ঢাকা কলেজের উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। পরে ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আজিমপুর গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা সিটি কলেজ, ধানমন্ডি আইডিয়াল কলেজসহ আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা তাদের সঙ্গে এসে মিলিত হন।

দুপুরে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ উচ্চ বিদ্যালয়, মতিঝিল সেন্ট্রালের ছাত্ররা শাপলা চত্বরে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেন। এতে আশপাশের এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে প্রচণ্ড যানজট।

দুপুর ১২টা থেকে মোহাম্মদপুর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মোহাম্মদপুর গার্লস কলেজ, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ আশপাশের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা সড়কে বসে বিক্ষোভ করছে। এতে ওই এলাকা যানজটে স্থবির হয়ে পড়েছে।

শিক্ষার্থীদের ৯ দফা দাবি

১. দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে শিক্ষার্থীসহ সব সড়ক হত্যার বিচার করতে হবে ও পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

২. ঢাকাসহ সারা দেশে সব গণপরিবহনে (সড়ক, নৌ, রেল ও মেট্রোরেল) শিক্ষার্থীদের হাফ পাস নিশ্চিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করতে হবে।

৩. গণপরিবহনে নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে এবং জনসাধারণের চলাচলের জন্য যথাস্থানে ফুটপাত, ফুটওভার ব্রিজ বা বিকল্প নিরাপত্তা ব্যবস্থা দ্রুততর সময়ের মধ্যে নিশ্চিত করতে হবে।

৪. সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সব যাত্রী এবং পরিবহন শ্রমিকের যথাযথ ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করতে হবে।

৫. পরিকল্পিত বাস স্টপেজ ও পার্কিং স্পেস নির্মাণ ও যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে (এক্ষেত্রে প্রয়োজনে কঠোর আইন প্রয়োগ করতে হবে)।

৬. দ্রুত বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ও যথাযথ তদন্ত সাপেক্ষে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের দায়ভার সংশিষ্ট ব্যক্তি বা মহলকে নিতে হবে।

৭. বৈধ ও অবৈধ যানবাহন চালকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বৈধতার আওতায় আনতে হবে এবং বিআরটিএর সকল কর্মকাণ্ডের ওপর নজরদারি ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

৮. আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে ঢাকাসহ সারা দেশে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা অবিলম্বে স্বয়ংক্রিয় ও আধুনিকায়ন এবং পরিকল্পিত নগরায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

৯. ট্রাফিক আইনের প্রতি জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য একে পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

(মজলুমের কণ্ঠ / ৩০ নভেম্বর / আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles