সারাকে বিয়ে করতে চাইলে মানতে হবে একটি শর্ত

বিনোদন ডেস্ক:

বিয়ে নিয়ে ভাবছেন ভারতের ছোটো নবাব খ্যাত অভিনেতা সাইফ আলি খানের মেয়ে সারা আলি খান। তবে মাকে বড্ড ভালোবাসেন তিনি। বিয়ের পরও মায়ের সঙ্গেই থাকতে চান। এজন্য তাকে বিয়ে করতে চাওয়া পুরুষটির জন্য একটি শর্ত জুড়ে দিয়েছেন এ বলিউড অভিনেত্রী। তবে এ যুগে সে শর্ত মানা হয়ত অনেক পুরুষের জন্যই কঠিন! সাইফকন্যা চান, যে পুরুষ তার এবং তার মা অমৃতার সঙ্গে থাকতে পারবেন, তাকেই তিনি বিয়ে করবেন।

সাম্প্রতিক ছবি ‘আতরঙ্গি রে’-র প্রচারে বিয়ের পরিকল্পনা নিয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে সোজাসাপটা শর্তের বিষয়টি জানিয়ে দেন তিনি।

সারা বলেন, ছবিতে তার চরিত্রের মতো তিনি পালিয়ে বিয়ে করতে রাজি নই। আমার ঘর মানে আমার মা। কোথাও পালিয়ে গেলেও সেখানেই ফিরে আসব। মাকে ছেড়ে কোথাও যাওয়ার ক্ষমতা আমার নেই। তাই বরকে সারা এবং সারার মায়ের সঙ্গে থাকতে হবে। পছন্দের কোনো ছেলে যদি এ শর্ত মানে তাহলে তার সঙ্গে বিয়ে হতে পারে সারার।

সাইফ আলি খানের সঙ্গে অমৃতার যখন বিচ্ছেদ হয়, সারার বয়স তখন মাত্র ৯। এরপর মায়ের কাছেই বেড়ে ওঠেন অভিনেত্রী। তাই অমৃতাকে ঘিরেই আবর্তিত সারার জীবন। সাইফ দ্বিতীয় বিয়ে করলেও (করিনার সঙ্গে বিয়ে হয় সইফের) অমৃতা একাই থেকেছেন তার সন্তানদের সঙ্গে। ২০০৪ সালের পর থেকে মেয়ে সারা এবং ছেলে ইব্রাহিমের সঙ্গে আলাদা বাড়িতে থাকেন অমৃতা। তাই মা ছাড়া মেয়ে যেন অন্ধ। সাক্ষাৎকারে তারই প্রমাণ দিলেন অভিনেত্রী।

সারার দাদা মনসুর আলি খান পতৌদি জাতীয় ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ছিলেন। পরদাদাও নবাব ইফতিখার আলি খান পতৌদিও দেশটির ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ছিলেন।

দ্বিতীয় ইঙ্গ-মারাঠা যুদ্ধের সময় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে সহায়তার পুরস্কার হিসেবে ১৮০৪ সালে পতৌদির প্রথম নবাব ফাইজ তালাব খানকে কোম্পানির তরফ থেকে ৪০টি গ্রাম ও পতৌদি শহর প্রদান করা হয়। ৮ম নবাব ইফতিখার আলি খান পতৌদি ইংল্যান্ড ও ভারত উভয় দেশের হয়ে ক্রিকেট খেলেছেন। তিনি ভারতীয় জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কও ছিলেন। তার পুত্র মনসুর আলি খান পতৌদি। তার ছেলে সাইফ আলি খান পাতৌদি।

 

(মজলুমের কণ্ঠ / ৪ ডিসেম্বর / আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles