এতোটুকু মাদ্রাসা ছাত্রের সাথে এ কেমন শত্রুতা !

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে এক মাদ্রাসা ছাত্রকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। হত্যার শিকার ওই ছাত্রের নাম দেওয়ান হামজা (১৩)। তার পিতার নাম দেওয়ান রফিক। হামজা চকতৈল গ্রামের বাসিন্দা এবং পার্শ্ববর্তী মাইঠানতা হফিজুল কুরআন মাদ্রাসার ছাত্র। শনিবার সকাল ৯টায় মাদ্রাসার পাশে বাঁশঝাঁড়ে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়। স্থানীয়রা ও নিহতের স্বজনরা ধারণা করছে কোন শত্রুতার জের ধরে এতাটুকু মাদ্রাসা ছাত্রকে হত্যা করে কেউ ঝুঁলিয়ে রেখেছে।

নিহতের মামাতো ভাই মোশারফ বাপ্পি জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় হামজার মা মাদ্রাসায় রাতের খাবার দিয়ে আসেন। শনিবার সকালে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ তার মৃত্যুর খবর জানান।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, নিহত হামজার বাড়ি চকতৈল পশ্চিম পাড়া হলেও পাশের গ্রাম মাইঠাইন হেফজখানায় পড়তো।   ১৮পারা কোরআন মুখস্থও করেছিলো। শুক্রবার বিকেল থেকে হামজা নিঁখোজ ছিল। সকালে উক্ত মাদ্রাসার দুজন ছাত্রকে দিয়ে বাড়িতে খবর পাঠায় তার মা-বাবর কাছে হামজা অসুস্থ, হুজুর আপনাদের যেতে বলছে। গিয়ে দেখে হামজার মৃত লাশ ঝুঁলছে বাঁশঝাড়ে। পা দুটো মাটিতে বেকে আছে। তার বাব-মা সহ এলাকাবাসী সবাই মন্তব্য করেন এটা কোন ভাবেই আত্মহত্যা নয়, পরিকল্পিত হত্যা।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম সাচ্চুসহ স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল মান্নান এবং সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এসএম আনিসুর রহমানও আনিস ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। শনিবারবাদ এশা  হামজার নামাজে যানাজা চকতৈল হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই মনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় লাশ পেয়েছি। বিষয়টি আমাদের কাছে সন্দেহজনক মনে হচ্ছে। আমরা তদন্ত করে দেখছি।লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আসল ঘটনা জানা যাবে।

(এম কন্ঠ/আর.কে/২৯ডিসেম্বর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

 

Related Articles