ব্রাজিল প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য খেলেইনি!

ম্যাচ হচ্ছিল বার্লিনে। কিন্তু সবার মন পড়েছিল বেলো হরিজন্তেতে। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের ৭-১ ব্যবধানে হারের স্মৃতি যে কোনোভাবেই মুছছে না কারও মন থেকে! এর মাঝে জার্মানিকে হারিয়ে প্রথম অলিম্পিক সোনা জিতেছে ব্রাজিল, কিন্তু এতেও চাপা দেওয়া যাচ্ছিল না সেই স্কোরলাইন। গ্যাব্রিয়েল জেসুসের একমাত্র গোলে ব্রাজিলের জয়ের পর তাই সবার কণ্ঠেই শোনা যাচ্ছিল ‘প্রতিশোধ’ শব্দটা। কিন্তু ব্রাজিল কোচ তিতে এটা মানতে মোটেই রাজি নন। তাঁরা যে প্রতিশোধের জন্য খেলেননি।

ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে বারবারই এসেছে বেলো হরিজন্তের সেই ম্যাচের প্রসঙ্গ। কিন্তু ব্রাজিল কোচের দাবি, ওসব নিয়ে ভাবার সময় নেই তাঁদের। ব্রাজিল কাল শুধু ভালো খেলার দিকেই মনোযোগ দিয়েছে, ‘সংবাদমাধ্যমই সে ম্যাচ (৭-১) নিয়ে কথা বলেছে, বাস্তবতা হলো, ওসব বহু আগেই শেষ। আমরা এখানে শুধু ভালো খেলতে এসেছিলাম। সেটা খেলেছি, জিতেছিও। আমাদের মধ্যে রাগ কিংবা ঘৃণা কিছুই ছিল না। এসব আবেগ নিয়ে খেলা যায় না। আমরা হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করার কোনো চেষ্টাও করিনি, আমরা শুধু ভালো খেলার চেষ্টা করেছি।’
দলের প্রাণভোমরা নেইমারকে ছাড়াই প্রস্তুতিপর্ব সারতে হচ্ছে ব্রাজিলকে। পায়ের চোটে বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত মাঠের বাইরে থাকবেন নেইমার। তবে তাঁকে ছাড়াই টানা দুই ম্যাচ জিতেছে ব্রাজিল। তিতে নেইমারের অনুপস্থিতিটাও প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ভেবে নিচ্ছেন, ‘এ ম্যাচ ও ফল থেকে ইতিবাচক অনেক কিছুই নেওয়া যায়, তবে আমরা কিছু ভুলও করেছি। আমরা বেশ কয়েকবার বল হারিয়েছি এবং আমরা উইং ব্যবহার করতে পারিনি ঠিকমতো। নেইমারকে ছাড়াই ভালো খেলতে শিখছি আমরা এবং এটাই আমাদের শক্তির অংশ।’
তিতে না মানলেও থিয়াগো সিলভা স্বীকার করছেন এ ম্যাচ তাঁদের কাছে কতটা গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে নিষেধাজ্ঞার জন্য খেলতে পারেননি সেবার অধিনায়কের আর্মব্যান্ড পরা থিয়াগো। এ কারণেই তাঁর কাছে এ ম্যাচটা গৌরব পুনরুদ্ধারের, ‘গর্বের ব্যাপার তো ছিলই। এত কিছু লেখা হয়েছে, বলা হয়েছে (বিশ্বকাপের ম্যাচটি নিয়ে)। এই জার্সি আরেকটু সম্মান দাবি করে। এ কারণে এত বড় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে জিততে পেরে আমি উচ্ছ্বসিত।’

Related Articles