টাঙ্গাইলে দুইজনের লাশ উদ্ধার একজন গুম

নিজস্ব প্রতিবেদক

টাঙ্গাইলে পৃথক স্থানে দুইজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অপজনকে খুন করে লাশ গুমের অভিযোগ উঠেছে। ভূঞাপুর উপজেলায় গাছ থেকে কানাই মালো (১৮) নামে এক যুবকের ঝুলন্ত লাশ ও গোপালপুর উপজেলায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা মরয়িম বেগম (৫৫) নামের এক নারী সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়ার পর তার লাশ উদ্ধার করা হয়। ধণবাড়ী উপজেলার পৌর শহরে তার নিজ অফিস কক্ষ থেকে সুলতানুজ্জামান হেলাল (৫০) নামের এক প্রি-ক্যাডেট শিক্ষককে খুন করে লাশ গুম করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন নিহতের পরিবার।

শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে ভূঞাপুর উপজেলার ফলদা হিন্দুপাড়া এলাকার ঝিনাই নদীর পাড়ে কদম গাছ থেকে কানাই মালোর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত কানাই মালো উপজেলার ফলদা হিন্দুপাড়া গ্রামের মৃত রবি মালোর ছেলে।
ভূঞাপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামছুল ইসলাম জানান, উপজেলার ফলদা হিন্দুপাড়া গ্রামের মৃত রবি মালোর ছেলে টাঙ্গাইল শহরে ফনিদ্র মিষ্টান্ন ভান্ডারে কাজ করতো।

বৃহস্পতিবার সরস্বতী পূজা উপলক্ষে বাড়িতে আসে। বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল চলে যাচ্ছে বলে তার মাকে জানায়। শুক্রবার সকালে ফলদা রামসুন্দর ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন ঝিনাই নদীর পাড়ের একটি কদম গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়। ধারনা করা হচ্ছে নিহত ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছেন। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এব্যাপারে নিহতের পরিবার থানায় কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

জেলার গোপালপুরে ব্যাটারী চালতি অটােরক্সিার ধাক্কায় মরয়িম বগেম (৫৫) নামরে এক নারীর মৃত্যু। নিহত ওই নারী গোপালপুর পৌরসভার তামাকপট্টি এলাকার ইউসুফ আলীর স্ত্রী। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে থানা সংলগ্ন পোষ্ট অফসিরে সামনে এই র্দূঘটনা ঘটে।

নিহতের ভাতিজা নুর আলম জানান, দুপুররে দিকে গোপালপুর পোষ্ট অফসিরে সামনে মরিয়ম বেগম সড়ক পাড় হওয়ার সময় একটি ব্যাটারী চালতি অটোরিক্সা তাকে ধাক্কা দয়ে। এতে গুরুত্বর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত্ব চকিৎিসক মৃত ঘোষণা করনে।

এদিকে ধণবাড়ী উপজেলার পৌর শহরে তার নিজ অফিস কক্ষ থেকে সুলতানুজ্জামান হেলালকে খুন করে লাশ গুম করার অভিযোগ তুলেছে নিহতের পরিবার।
নিহতের বড় ভাই আবু বকর সিদ্দিক জানান, জেলার ধনবাড়ী পৌরশহরে স্কুল শিক্ষক মো. সুলতানুজ্জামান হেলালকে খুন করে লাশ গুম করা হয়েছে। পরিবারে অভিযোগ বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে তার অফিস কক্ষে খুন করে গুম করে দুর্বৃত্তরা। নিহত সুলতানুজ্জামান পৌর শহরের নলহরা (নল্যা) বাজারের আরএনজি প্রি-ক্যাডেট স্কুলের পরিচালাক এবং উপজেলার বানিয়াজান ইউনিয়নের বাঐজান গ্রামের মৃত হাসান আলী মন্ডলের ছেলে। বৃহস্পতিবার রাতে সুনতানুজ্জামান হেলাল ধনবাড়ী বাজার থেকে কাঁচা বাজার করে নল্যা বাজারের বিষ্ণুর সেলুনের দোকানের সামনে তার মোটর সাইকেলটি রেখে চা খেতে যায়। দীর্ঘ সময় চলে যাওয়ায় পরও সে ফিরে না আসলে ফোন দেন বিষ্ণু। ফোন বন্ধ পাওয়ায় বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের জানান।

খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে তার স্কুল অফিস কক্ষের মেঝেতে বিভিন্নস্থানে পড়ে থাকা রক্ত, মোবাইল ফোনটি দেখতে পায় পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়রা। তাকে খুন করে গুম করা হয়েছে বলেও ধারণা করছেন এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে সহর প্রি-ক্যাটেড এন্ড হাই স্কুলের পরিচালক সহর আলী জানান, আমি আজ সকালে সুলতানুজ্জামান হেলালকে খুন করে গুম করা হয়েছে বলে আমরা ধারণা করছি।

ধনবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) আশরাফুল ইসলাম ও এসআই মাজাহার এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, রাতেই খবর পেয়ে এবং আজ সাকালেও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। তাকে হত্যা করে গুম করার ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে তার পরিবারের দাবী তাকে খুন করে গুম করা হয়েছে এবং থানায় অপমৃত্যুার মামলা হয়েছে।

(মজলুমের কণ্ঠ/৩১জানুয়ারি/আর.কে)

সংবাদটি শেয়ার করুন

Related Articles